আপলোড ডেট : 26 Oct, 2018

২৮ অক্টোবরের শহীদদের রক্তের উপর দিয়ে ক্ষমতায় এসে সরকার দেশে একদলীয় ফ্যাসিবাদী স্বৈরশাসন চালু করেছে

আলোচনা সভা ও দোয়ার মাহফিলের আয়োজনের মাধ্যমে যথাযোগ্য মর্যাদায় আগামী ২৮ অক্টোবর পালন করার জন্য জামায়াতে ইসলামীর সকল শাখা সংগঠনের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর আমীর জনাব মকবুল আহমাদ এবং সেক্রেটারী জেনারেল ডাঃ শফিকুর রহমান আজ ২৬ অক্টোবর প্রদত্ত এক যুক্ত-বিবৃতিতে বলেন, “২০০৬ সালের ২৮ অক্টোবর বাংলাদেশের রাজনীতির ইতিহাসে এক কলংকিত দিবস। সেইদিন জামায়াতে ইসলামী ও ইসলামী ছাত্রশিবিরের যে সব নেতা-কর্মী আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটের সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের হাতে শাহাদাত বরণ করেছেন আমরা তাদের গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করছি।

২০০৬ সালের ২৮ অক্টোবর ৪দলীয় জোট সরকারের মেয়াদের শেষ দিনে বায়তুল মোকাররম মসজিদের উত্তর গেটে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী একটি শান্তিপূর্ণ সমাবেশের আয়োজন করে। এ সমাবেশে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটের সশস্ত্র সন্ত্রাসীরা লগি-বৈঠা, লাঠি, লোহার রড, আগ্নেয়াস্ত্র ও হাত বোমা নিয়ে হিংস্র সন্ত্রাসীর মত হামলা করে জামায়াতে ইসলামী ও ইসলামী ছাত্রশিবিরের নেতা-কর্মীদের পিটিয়ে নৃশংসভাবে হত্যা করে। শুধু তাই নয়, ঐ সব সন্ত্রাসীরা লাশের উপর পৈশাচিকভাবে উল্লাস নৃত্য করে। এ নির্মম হত্যাকাণ্ডের ঘটনার সাথে জড়িত সন্ত্রাসীদের বিচারের দাবীতে জামায়াতের পক্ষ থেকে একটি মামলা দায়ের করা হলেও তৎকালীন সরকারসহ এই পর্যন্ত কোন সরকারই সেই হত্যাকারীদের বিচার করেনি। বরং বর্তমান জুলুমবাজ কর্তৃত্ববাদী সরকার ক্ষমতায় বসে সেই মামলা প্রত্যাহার করে নিয়ে খুনীদেরকে রক্ষা করে এবং ক্রসফায়ার, হত্যা, খুন, গুম ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের লাইসেন্স দেয়। তারই ধারাবাহিকতায় দেশে বর্তমানে ক্রসফায়ার, হত্যা, খুন, গুম ও সন্ত্রাস ইত্যাদি মানবতাবিরোধী অপরাধ অব্যাহতভাবে বেড়েই চলেছে।

২৮ অক্টোবরের শহীদদের রক্তের উপর দিয়ে বর্তমান সরকার ক্ষমতায় এসে দেশ থেকে গণতন্ত্র, আইনের শাসন, অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ নির্বাচন ব্যবস্থা ধ্বংস, জনগণের ভোটাধিকার হরণ, মতামত প্রকাশে বাধা এবং সংবাদ পত্র ও মিডিয়ার স্বাধীনতা এবং বিচার বিভাগের স্বাধীনতা হরণ করে দেশে একদলীয় ফ্যাসিবাদী স্বৈরশাসন চালু করেছে। সরকার গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয়ার পরিবর্তে জনগণের ভোটাধিকার হরণ করে নির্বাচন ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে একে একে সকল সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে ধ্বংস করেছে। সরকারের সকল ষড়যন্ত্র ও চক্রান্তের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধভাবে প্রতিবাদে সোচ্চার হওয়ার জন্য আমরা দলমত, নির্বিশেষে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

২৮ অক্টোবরের শহীদগণ এ দেশে একটি ইনসাফপূর্ণ গণতান্ত্রিক কল্যাণ রাষ্ট্র কায়েমের স্বপ্ন দেখেছিলেন। তাদের সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নের দৃঢ় অঙ্গীকারের মাধ্যমে আগামী ২৮ অক্টোবর আলোচনা সভা ও দোয়ার মাহফিলের আয়োজন করে যথাযোগ্য মর্যাদায় ২৮ অক্টোবর পালন করার জন্য আমরা জামায়াতে ইসলামীর সকল শাখার প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি এবং দেশবাসীর সার্বিক সহযোগিতা কামনা করছি।”