আপলোড ডেট : 29 Nov, 2018

জাতি গোলামীর জিঞ্জির থেকে মুক্তি চায়-ডা: শফিকুর রহমান

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় সেক্রেটারী জেনারেল ডা: শফিকুর রহমান বলেছেন- দীর্ঘ ৮বছর পর আপনাদের সামনে এসে হাজির হয়েছি। সীমাহিন জুলুম নিপীড়ন উপেক্ষা করে আমরা এখনো সত্যের পথে ঠিকে আছি। কুরআন নাযিলের মাস পবিত্র মাহে রমজানের শিক্ষা কাজে লাগিয়ে জালিমের বিস্তার চিরতরে ছিন্ন করার প্রতিজ্ঞা নিতে হবে। দেশ ও এই জনপদকে শান্তির জনপদে পরিনত করতেই আমাদের সংগ্রাম। কে সরকারে এলো কে গেলো সেটা বিবেচ্য নয়। মানুষ শান্তিতে বাচঁতে চায়। জুলুমের অবসান চায়। দেশবাসী গোলামীর জিঞ্জিরে আবদ্ধ থাকতে চায়না। স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব আজ চরম হুমকীর মুখে। স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় এবং মানুষের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠায় এখন প্রয়োজন দেশপ্রেমিক জনতার ইস্পাদত কঠিন ঐক্য। দেশ ও জাতির কল্যানে জামায়াত অতীতের ন্যায় তাদের আদর্শিক কর্মপন্থা অব্যাহত রাখতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।

তিনি আজ শনিবার সিলেট মহানগর জামায়াতের উদ্যোগে সাংবাদিক, পেশাজীবি, বিশিষ্ট ব্যাক্তিবর্গ ও রাজনীতিবিদদের সম্মানে অনুষ্ঠিত ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথা বলেন। জামায়াতের কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও সিলেট মহানগর আমীর এডভোকেট এহসানুল মাহবুব জুবায়ের এর সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারী মাওলানা সোহেল আহমদের পরিচালনায় বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষের উপস্থিতিতে অনুষ্ঠিত মাহফিলটি একটি মিলন মেলায় পরিণত হয়। মাহফিলে জেলা বারের বিশিষ্ট আইনজীবি, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজের শিক্ষক, সিলেটে কর্মরত ইলেক্ট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সংবাদ কর্মী, কবি, সাহিত্যিক, চিকিৎসক এর পাশাপাশি সমমনা রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। সরকারের শত জুলুম, নিপীড়ন উপেক্ষা করে নগরীর মালঞ্চ কমিউনিটি সেন্টারে সিলেট মহানগর জামায়াতের এরকম জনাকীর্ণ ইফতার মাহফিল সিলেটের সুধী মহলকে আশান্বিত করেছে। মাহফিলে দেশ-জাতির মঙ্গল ও জাতীয় নেতৃবৃন্দের মুক্তি-সুস্থতা কামনা করে বিশেষ মোনাজাত পরিচালনা করেন জামায়াতের কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য সাবেক এমপি অধ্যক্ষ মাওলানা ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী।

ক্বারী আবুল হাসনাত বেলালের পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মধ্য দিয়ে সুচীত মাহফিলে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্ঠা খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির, বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সিলেট সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, জামায়াতের কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ও সিলেট বিভাগের আঞ্চলিক দায়িত্বশীল অধ্যাপক ফজলুর রহমান, সিলেট জেলা আইনজীবি সমিতির সভাপতি এডভোকেট মোহাম্মদ লালা, জামায়াতের কেন্দ্রীয় মজলিসে শুরা সদস্য ও সিলেট জেলা দক্ষিনের আমীর মাওলানা হাবীবুর রহমান, জেলা উত্তরের আমীর হাফিজ আনোয়ার হোসাইন খান, খেলাফত মজলিস সিলেট মহানগর সহ-সভাপতি আব্দুল হান্নান তাপাদার, ইসলামী ঐক্যজোট মহানগর সভাপতি মুফতী ফয়জুল হক জালালাবাদী, মহানগর জমিয়তের সহ-সভাপতি মাওলানা মাহমুদুল হাসান। হামদে বারী তা’আলা পরিবেশন করে দিশারী শিল্পীগোষ্ঠীর হিফজুর রহমান।

মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন- খেলাফত মজলিসের কেন্দ্রীয় নায়েবে আমীর ভাষাসৈনিক অধ্যক্ষ মাসউদ খান, বিএনপির কেন্দ্রীয় সিলেট বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সাবেক এমপি দিলদার হোসেন সেলিম, বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ডা: শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরী, সিলেট প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মুকতাবিস উন নুর, সিলেট চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি খন্দকার শিপার আহমদ, সিলেট মহানগর জামায়াতের নায়েবে আমীর হাফিজ আব্দুল হাই হারুন ও মো: ফখরুল ইসলাম, সিলেট মহানগর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আজমল বখত্ চৌধুরী সাদেক, জেলা দক্ষিণের নায়েবে আমীর অধ্যক্ষ আব্দুল হান্নান, জেলা উত্তরের নায়েবে আমীর সৈয়দ ফয়জুল্লাহ বাহার, জেলা দক্ষিণের সেক্রেটারী মাওলানা লোকমান আহমদ, উত্তরের সেক্রেটারী মাওলানা ইসলাম উদ্দিন, সিলেট মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি হুমায়ুন কবির শাহীন, মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি ও কাউন্সিলার রেজাউল হাসান কয়েস লোদী, জেলা বিএনপির উপদেষ্ঠা মাজহারুল ইসলাম ডালিম, ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাইফুল্লাহ আল হোসাইন, জৈন্তাপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন, গোলাপগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হাফিজ নজমুল ইসলাম, সিলেট প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল মাহমুদ ও সিনিয়র সহ-সভাপতি এনামুল হক জুবের, সিলেট মহানগর বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এমদাদ হোসেন চৌধুরী, জেলা আইনজীবি সমিতির যুগ্ম সম্পাদক এডভোকেট এন. আই মাসুম চৌধুরী, সহ-সম্পাদক এডভোকেট হেদায়েত হোসেন তানভীর ও এডভোকেট রব নওয়াজ রানা, ইঞ্জিনিয়ান মহিউদ্দিন, ইসলামী ঐক্যজোট সিলেট জেলা সভাপতি মাওলানা আসলাম রহমানী, লেবারপার্টির মহানগর সভাপতি মাহবুবুর রহমান খালেদ, সিলেট সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জৈন উদ্দিন, সিটি কাউন্সিলার রাজিক আহমদ, কাউন্সিলার আব্দুল জলিল নজরুল, কাউন্সিলার আব্দুর রকিব তুহিন, কাউন্সিলার সোহেল আহমদ রিপন, কাউন্সিলার সিকান্দর আলী, জাগপার কেন্দ্রীয় নেতা শাহজাহান আহমদ লিটন, সিলেট মহানগর জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারী মো: আব্দুর রব, শাহজাহান আলী ও ড. নুরুল ইসলাম বাবুল প্রমুখ।

সভাপতির বক্তব্যে এডভোকেট এহসানুল মাহবুব জুবায়ের বলেন- পবিত্র মাহে রমজান হচ্ছে কুরআন নাজিলের মাস। এই পবিত্র মাসে ইসলামের প্রাথমিক এবং চুড়ান্ত বিজয় নিশ্চিত হয়েছিল। তাই আত্মশুদ্ধির মাস মাহে রমজান থেকে শিক্ষা নিয়ে সা¤্রাজ্যবাদী ও আধিপত্যবাদীদের হাত থেকে দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় দৃঢ় শপথ নিতে হবে। সকল জুলুম নিপীড়ন উপেক্ষা করেই মানুষের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠায় দেশপ্রেমিক জনতার সংগ্রাম চালিয়ে যেতে হবে। জনতার বিজয় আসতে আর বেশী দেরি নেই।